কেন অবৈধভাবে ভারতে থাকতে যাবে বাংলাদেশিরা : প্রশ্ন প্রধানমন্ত্রীর

মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারি ২০১৯ | ১০:০০ পূর্বাহ্ণ | 551 বার

কেন অবৈধভাবে ভারতে থাকতে যাবে বাংলাদেশিরা : প্রশ্ন প্রধানমন্ত্রীর

কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও সামাজিক নিরাপত্তা বাস্তবায়নে ক্রমেই এগিয়ে যাওয়া বাংলাদেশের নাগরিকরা কেন অবৈধভাবে ভারতে থাকতে চাইবে – এমন প্রশ্ন তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আসামের নাগরিকত্ব তালিকা প্রসঙ্গে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম সিএনএন নিউজ-এইট্টিনকে দেয়া সাক্ষাৎকারে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী। রোববারের (২০ জানুয়ারি) পর প্রকাশিত সাক্ষাৎকারটির আরো একটি অংশে তিস্তা সমস্যার পাশাপাশি রোহিঙ্গা ইস্যু এবং জঙ্গিবাদ দমনের বিষয়েও কথা বলেন শেখ হাসিনা।

সিএনএন এর সাক্ষাতকারে প্রধানমন্ত্রী বলেন,’বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠা করার জন্য। প্রতিষ্ঠা করার পর থেকে পার্টি কঠোর পরিশ্রমের সাথে এই কাজটিই করে আসছে। জনগণও উপলব্ধি করেছে যে কেবল এই দলই মানুষের জন্য কাজ করে।’ সাক্ষাৎকারে এভাবেই নিজ সরকারের সাফল্য তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিএনপির নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন তোলার পাশাপাশি জামায়াতকে সঙ্গে নিয়ে নির্বাচন করায় জনগণ ভোটের মাধ্যমে তাদের উপযুক্ত জবাব দিয়েছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন,’তাদের নেতৃত্ব কে দিচ্ছে সেটা তারা স্পষ্ট করে তুলে ধরতে পারে নি। তারা যদি ক্ষমতায় আসে তবে সরকারপ্রধান কে হবে সেটাও তারা নিশ্চিত করতে পারে নি। জামায়াতকে সঙ্গে নেবার পর আমাদের জনগণ পুরোপুরিভাবে তাদেরকে প্রত্যাখ্যান করেছে।’ আসামে অবৈধভাবে বাংলাদেশিদের বসবাসের অভিযোগও খতিয়ে দেখার আশ্বাস দেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ‘আমাদের অর্থনৈতিকভাবে উন্নয়ন ঘটেছে। দারিদ্র্যতার হার কমেছে, কাজেই আমাদের জনগণের সেখানে গিয়ে বসবাস করার কোন কারণ নেই। তবে যেহেতু এই বিষয়ে প্রশ্ন উঠেছে, আলোচনার মাধ্যমে বিষয়টিকে পরবর্তীতে সমাধান করার চেষ্টা করা হবে।’

রোহিঙ্গা সংকট সমাধানে ভারত সরকারের সহযোগিতা কামনা করেন প্রধানমন্ত্রী। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘রোহিঙ্গা জনগণের তাদের নিজেদের দেশে ফিরে যাবার সুযোগ পাওয়া উচিত। ভারত এই বিষয়ে কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারবে বিধায় আমাদের এই ইস্যুতে ভারতের সহযোগিতা প্রয়োজন।’

এছাড়া তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তির ক্ষেত্রে এ পর্যন্ত মোদি সরকারের নেয়া পদক্ষেপের প্রশংসা করে শিগগিরই এ সমস্যা সমাধানের আশা জানান শেখ হাসিনা। আশাবাদ ব্যক্ত করে তিনি বলেন, ‘এটা ভারত সরকারের সিদ্ধান্ত। তবে এখনও পর্যন্ত এই বিষয়ে ভারতের প্রধানমন্ত্রী মোদি যেসব পদক্ষেপ নিয়েছেন সেগুলো প্রশংসার দাবিদার। আশা করবো খুব দ্রুত এই সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে।’ রোববার (২০ জানুয়ারি) সিএনএন নিউজ-এইট্টিনকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাক্ষাৎকারের প্রথম অংশটি প্রকাশ করে।

Development by: visionbd24.com