গৌরনদীতে গণধর্ষণের অভিযোগে দুই শিক্ষার্থী গ্রেফতার

সোমবার, ১১ মার্চ ২০১৯ | ২:৩৪ অপরাহ্ণ | 221 বার

গৌরনদীতে গণধর্ষণের অভিযোগে দুই শিক্ষার্থী গ্রেফতার

বরিশালের গৌরনদী পৌর শহরে নবম শ্রেণির এক মাদ্রাসা ছাত্রী গণধর্ষণের শিকার হয়েছে। ধর্ষণের পাশাপাশি ধর্ষণের ভিডিওচিত্র ধারণের অভিযোগে বেসরকারি টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের দুই ছাত্রকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ধর্ষিতা কিশোরী (১৫) ওই উপজেলার আল-হেলাল ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার ছাত্রী এবং তার বাবা স্থানীয় নাহার সিনেমা হল সংলগ্ন চা দোকানি। গৌরনদী মডেল থানার ওসি গোলাম সরোয়ার এই সত্যতা স্বীকার করেছেন।

রবিবার রাতে আটককৃতরা হলো গৌরনদীর শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের ২য় সেমিস্টারের ছাত্র গাইবান্ধার বাসিন্দা সাদিক সরকার এবং একই কলেজ ও সেমিস্টারের ছাত্র শেরপুরের বাসিন্দা সরোয়ার হোসেন। এ ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত ধর্ষিতার কথিত প্রেমিক একই কলেজের একই সেমিস্টারের ছাত্র শাওন পলাতক রয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানায়, মুঠোফোনের মাধ্যমে ধর্ষিতার সাথে শাওনের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর তাদের দেখা সাক্ষাত হয়। গত ৭ ফেব্রুয়ারি শাওন তার প্রেমিকাকে মুঠোফোনে উপজেলার সদরের জান্নাত মঞ্জিলের ভাড়া বাসায় যেতে বলে। ধর্ষণে অভিযুক্তরা ওই বাসার একটি ফ্লাটে একই সাথে বসবাস করতো। ওই বাসায় যাওয়ার পর ওই ছাত্রীকে গণধর্ষণ করে ৩ ছাত্র। এ সময় ধর্ষণের ভিডিওচিত্র ধারণ করে তারা। পরবর্তীতে ওই ভিডিও ইন্টারনেটের মাধ্যমে ছড়িয়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে গত ১১ ও ১২ ফেব্রুয়ারি একইভাবে তাকে গণধর্ষণ করে তারা।

বিষয়টি গত ২৮ ফেব্রুয়ারি জান্নাত মঞ্জিলের মালিক জানতে পেরে ওই তিন অভিযুক্ত ছাত্রকে তার বাসা থেকে নামিয়ে দেয়। এরপর তারা উপজেলার নাঠৈ এলাকায় ভাড়া বাসায় ওঠে। গত রবিবার রাতে ধর্ষিতা বিষয়টি প্রকাশ করার পর গৌরনদী মডেল থানা পুলিশ নাঠৈ থেকে ওই দুই ছাত্রকে আটক করে। এ সময় প্রধান অভিযুক্ত শাওন পালিয়ে যায়। গৌরনদী মডেল থানার ওসি গোলাম সরোয়ার জানান, এ ঘটনায় ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। ওই মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আটক দুই জনকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। পলাতক শাওনকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য ধর্ষিতা ছাত্রীকে শের-ই বাংলা মেডিকেলের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) প্রেরণ করা হয়েছে।

Development by: visionbd24.com