ড. রেদোয়ানের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতারক চক্রের রাহুগ্রাস থেকে এলডিপি মুক্ত হওয়ায় মিষ্টি বিতরণ

শুক্রবার, ১৩ মে ২০২২ | ২:১৪ অপরাহ্ণ | 34 বার

ড. রেদোয়ানের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতারক চক্রের রাহুগ্রাস থেকে এলডিপি মুক্ত হওয়ায় মিষ্টি বিতরণ

কুমিল্লার চান্দিনায় লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) মহাসচিব ও সাবেক প্রতিমন্ত্রী ড. রেদোয়ান আহমেদের গাড়িতে হামলা ও তাকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে এলডিপির মহিলা সংগঠন গণতান্ত্রিক মহিলা দলের নেতাকর্মীরা।

শুক্রবার সকালে এলডিপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ঘণ্টাব্যাপী এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন তারা।

গণতান্ত্রিক মহিলা দলের সভাপতি অধ্যাপিকা কারিমা খাতুনের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন–এলডিপির প্রেসিডিয়াম সদস্য অ্যাডভোকেট ড. আওরঙ্গজেব বেলাল, অ্যাডভোকেট মাহমুদ মোর্শেদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য ড. নেয়ামুল বশির, উপদেষ্টা অধ্যক্ষ মাহবুবুর রহমান, যুগ্ম মহাসচিব বিল্লাল হোসেন মিয়াজি, আইন সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবুল হাসেম, গণতান্ত্রিক যুবদলের আহ্বায়ক আমান সোবহান, গণতান্ত্রিক স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক খালিদ বিন জসিম, ঢাকা মহানগর উত্তর এলডিপির সদস্য সচিব অবাক হোসেন রনি, গণতান্ত্রিক মহিলাদলের সাধারণ সম্পাদক উপাধ্যক্ষ তপতি রানী কর, সহ-সভাপতি উপাধ্যক্ষ শামসুন নাহার সিদ্দিকা, সহ-সভাপতি অধ্যাপিকা মোমেনা খন্দকার, দক্ষিণের সভাপতি তাহমিনা, উত্তরের সভাপতি নিলা, মহিলা দল নেত্রী আনোয়ারা প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তরা বলেন, ‘রেদোয়ান আহমেদ কুমিল্লার চান্দিনা থেকে চারবারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য। তিনি মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। ৯ মে চান্দিনা উপজেলা যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ রেদোয়ান আহমেদের গাড়ি ভাঙচুর, দলীয় কার্যালয় ভাঙচুর ও বাড়িতে হামলা চালিয়ে পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে অশোভন আচরণ করে। রেদোয়ান আহমেদ আত্মরক্ষার্থে থানায় অবস্থান নেন। কিন্তু তাঁর বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেওয়া হয়েছে। বর্তমান আওয়ামী সরকার যে সন্ত্রাসনির্ভর কার্যক্রম চালাচ্ছে, এই হামলা তারই প্রমাণ। আমরা রেদোয়ান আহমেদের নিঃশর্ত মুক্তি চাই।’

এদিকে মানববন্ধন শেষে প্রতারক চক্রের রাহুগ্রাস থেকে এলডিপি মুক্ত হওয়ায় সাধারণ নেতাকর্মীরা মিষ্টি বিতরণ করেন। সদ্য পদত্যাগকারীদের বিষয়ে এক পতিক্রিয়ায় এলডিপি যুগ্ম মহাসচিব বিল্লাল হোসেন মিয়াজি গণমাধ্যমকে বলেন, কমিটি বাণিজ্য, টাকা আত্মসাত, অবৈধ প্রবাসীদের নাগরিকত্ব পাইয়ে দেওয়ার নামে এলডিপির প্রেসিডেন্টের স্বাক্ষর নকল করে পদ প্রদান, অনুষ্ঠানে খরচের নামে দীর্ঘদিন ধরে দলের টাকা আত্মসাত, বিভিন্ন অনুষ্ঠানের ফান্ড কালেকশনের নামে চাঁদাবাজি, পার্টি ও অনুষ্ঠানের হল ভাড়া নেওয়ার কথা বলে বিভিন্ন লোকের কাছ থেকে টাকা উত্তোলন করে আত্মসাত করাসহ বিভিন্ন অরাধে অভিযুক্ত এই প্রতারক চক্র। তারা দীর্ঘদিন এলডিপি নেতা পরিচয় দিয়ে অপকর্ম করে আসছিলো। বিষয়গুলো জানাজানি হওয়ায় জনরোশ থেকে বাঁচতে তারা এলডিপি ছেড়েছে। এই প্রতারক চক্র এলডিপি ছাড়ায় দলের সমস্ত নেতাকর্মীরা খুশি। জেলায় জেলায় মিষ্টি বিতরণ চলছে।

তিনি বলেন, গণমাধ্যমে পদপদবিসহ বিভিন্ন লোকের নাম প্রকাশ করা হলেও এদের ১/২জন ছাড়া কেউ পার্টির কার্যক্রমে সক্রিয় ছিলো না। পদত্যাগকারীদের যে তালিকা গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে তা সম্পূর্ণ ভূয়া। এখানে অনেকের নাম উল্লেখ করা হয়েছে যারা কখনই এলডিপি করতো না এবং আমরাও তাদের চিনি না। এই প্রতারক চক্র এলডিপি থেকে সরে যাওয়ায় তাৎক্ষণিক আনন্দ উদযাপন করে মিষ্টি বিতরণ করেছেন এলডিপির নেতাকর্মীরা। আজ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মিষ্টি বিতরণ চলছে। এই প্রতারক চক্রের পদত্যাগের সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানাচ্ছি।

Development by: visionbd24.com