ঢাকা-৭ আসনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী ‘নিখোঁজ’

বৃহস্পতিবার, ২৯ নভেম্বর ২০১৮ | ১১:০৪ পূর্বাহ্ণ | 582 বার

ঢাকা-৭ (লালবাগ ও চকবাজার) আসনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী ও ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সহ-সভাপতি মোশারেফ হোসেন খোকনকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তুলে নিয়ে গেছে বলে অভিযোগ করেছেন দলটির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

বুধবার সন্ধ্যায় দলের নয়াপল্টনের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন। রিজভী বলেন, ২৮ নভেম্বর দুপুরে মনোনয়নপত্র দাখিল করে বাসার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হওয়ার পর থেকে সম্ভাব্য সকল জায়গায় খোঁজ নেওয়ার পরও তার (খোকন) কোনো হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সবার সামনে তাকে তুলে নিয়ে গেছে করেছে।

তার অভিযোগ, শরীয়তপুর-৩ (ভেদরগঞ্জ-গোসাইরহাট-ডামুড্যা) আসনে বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশী মিয়া নুর উদ্দিন অপু নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে ভেদরগঞ্জ উপজেলা সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ের দিকে রওয়ানা হলে পথিমধ্যে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা অস্ত্র-শস্ত্র নিয়ে অতর্কিতে তাদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে।

‘‘এমনকি মিয়া নুর উদ্দিন অপুকে কার্যালয়ে ঢুকতেও দেয়া হয়নি। সন্ত্রাসীরা নির্বিচারে বিএনপি নেতাকর্মীদেরকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। এসময় আওয়ামী গুন্ডারা বিএনপি নেতাকর্মীদের নিকট থেকে ১৫টি মোটরসাইকেল কেড়ে নিয়ে যায় আওয়ামী লীগের লোকজন।’’

তিনি বলেন, বিএনপি নেতাকর্মীরা তাদের ওপর আওয়ামী সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের হামলা এবং মোটরসাইকেল লুটের বিষয়টি পুলিশকে জানালে পুলিশ তাদের অসহায়ত্ব প্রকাশ করে বলে যে, ‘তাদের কিছুই করার নেই।’ এরপর একই নির্বাচনী এলাকা গোসাইরহাট এলাকার মধ্য দিয়ে ফিরে আসার সময় আওয়ামী লীগের স্থানীয় সভাপতির নেতৃত্বে সশস্ত্র ক্যাডার’রা মিয়া নুর উদ্দিন অপু’র গাড়ীবহরে ব্যাপক আক্রমণ চালিয়ে ভাংচুর ও বিএনপি নেতাকর্মীদের আহত করে।

দলের তিনজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা আব্দুল আউয়াল মিন্টু, মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল হাবিবউন নবী খান সোহেল নির্বাচন করছেন না এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করলে রিজভী বলেন, তাদেরকে জিজ্ঞাস করুন। ‘‘এটা তাদের ব্যক্তিগত বিষয়। দল নির্বাচনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে, সবাই যে নির্বাচন করবেন সেটা তো ঠিক নয়। নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তো আরও অনেক কাজ, অন্যান্যরা বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত থাকবেন।’’

এর আগে গত ২২ নভেম্বর যশোর-৬ (কেশবপুর) আসন থেকে বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশী আবু বকর আবু হোটেল থেকে ‘তুলে’ নেওয়ার পর বুড়িগঙ্গা থেকে মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ওইদিনও রিজভী অভিযোগ করেন, যশোর জেলা বিএনপি’র সহ-সভাপতি ও চারবারের নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান আবুকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তাকে হত্যা করেছে।
এনবিপি/এস

Development by: visionbd24.com