ফারুক ও তাসভির সাত দিনের রিমান্ডে

সোমবার, ০১ এপ্রিল ২০১৯ | ৯:৩৬ পূর্বাহ্ণ | 236 বার

ফারুক ও তাসভির সাত দিনের রিমান্ডে

রাজধানীর বনানীর এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া দুই আসামিকে গতকাল রবিবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত সাত দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দিয়েছেন। আগুন লাগার ঘটনায় দায়ের করা মামলাটির তদন্তভার এরই মধ্যে বনানী থানা থেকে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

ভবনটির জমির মালিক প্রকৌশলী এস এম এইচ আই ফারুক এবং বর্ধিত অংশের মালিক তাসভির উল ইসলামকে আগের রাতে গ্রেপ্তারের পর গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে ডিবি কর্মকর্তারা বলেছেন, ‘বনানীর কামাল আতাতুর্ক এভিনিউয়ের এফআর টাওয়ারে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় জড়িত কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না। তদন্তে দায়ীদের বিরুদ্ধে তথ্য-প্রমাণ সংগ্রহ করা হবে। ’

গতকাল দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে ডিবির অতিরিক্ত কমিশনার আব্দুল বাতেন বলেন, ‘অগ্নিকাণ্ডের পর প্রকৃত অর্থে কে এমনটি ঘটাল, কারা দায়ী বা কাদের গাফিলতি ছিল, এগুলোর বিশ্লেষণ কখনো হয় না। এসব বহুতল ভবনে অগ্নিকাণ্ড ঘটলে কী কী ব্যবস্থা ও উপকরণ থাকা উচিত—এ প্র্যাকটিস অনেক ক্ষেত্রেই নেই। তদন্তে সব বিষয় দেখা হবে। ’ তিনি বলেন, ‘এফআর টাওয়ারে আগুন লাগার ঘটনায় দায়ের করা মামলায় এরই মধ্যে ফারুক ও তাসভিরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ক্ষেত্রে রাজউক, মালিকপক্ষ এবং ডেভেলপার কম্পানিগুলোর মধ্যে কার কী ভূমিকা ছিল, দেখা হবে। সব অপরাধ পর্যালোচনা করে তদন্ত শেষে তাদের গাফিলতি ও অপরাধ চিহ্নিত করে আদালতে অভিযোগপত্র দেওয়া হবে। ’

এদিকে গতকাল দুপুরে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা, ডিবির পরিদর্শক মো. জালাল উদ্দিন মামলার দুই আসামিকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ডে নেওয়ার জন্য আবেদন করেন।

আবেদনে বলা হয়, এই আসামিরা ও এফআর টাওয়ার ভবন ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্যরা অসৎ উদ্দেশ্য ও আর্থিক সুবিধা পাওয়ার লোভে নির্মাণ বিধিমালা লঙ্ঘন করেছেন এবং ওই ভবনের জানমালের নিরাপত্তার বিষয়ে লক্ষ না রেখে চরম অবহেলা ও তাচ্ছিল্যপূর্ণ কার্যকলাপ করার ফলে দুর্ঘটনায় মর্মান্তিকভাবে ২৬ জন নিহত এবং শতাধিক আহত হয়। এ ছাড়া দুর্ঘটনায় পার্শ্ববর্তী ভবনসহ রাষ্ট্রীয় সম্পদেরও ক্ষতি হয়। আসামিদের কয়েকটি কারণে জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন। নির্মাণকাজ সঠিকভাবে করা হয়েছে কি না, রাজউকের বিধিমালা মানা হয়েছে কি না, ভবনে অগ্নিনির্বাপণব্যবস্থা ছিল কি না, থাকলে মেয়াদ আছে কি না, দ্রুত নির্গমনের সিঁড়ি ছিল কি না বা তা ব্যবহার উপযোগী কি না, দুর্ঘটনায় আটকে পড়াদের উদ্ধারে আসামিদের ভূমিকা ছিল কি না—এসব প্রশ্নের উত্তর জানার জন্য আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদ করা প্রয়োজন।

মামলার আসামি তাসভিরের পক্ষে শুনানিতে অ্যাডভোকেট এহসানুল হক সমাজী বলেন, ‘একটি চুক্তির মাধ্যমে তিনি ভবনকে সম্প্রসারিত করেন। রাজউকের অনুমোদন নিয়েই তা করা হয়। তিনি আগুন ধরাননি। ’

প্রকৌশলী ফারুকের পক্ষে আইনজীবীরা বলেন, ‘তিনি জমির মালিক। তিনি একটি ডেভেলপার কম্পানিকে জমি দিয়েছেন। তারা ভবন করেছে। ভবন তৈরিতে তাঁর কোনো ভূমিকা নেই। ’

শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম সাব্বির ইয়াসির আহসান চৌধুরীর আদালত আসামিদের জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে সাত দিন করে রিমান্ডের আবেদন মঞ্জুর করেন।

গত শনিবার রাতে রাজধানীর বারিধারা এলাকা থেকে ফারুক ও তাসভিরকে গ্রেপ্তার করে ডিবি পুলিশ। এফআর টাওয়ারে আগুনে হতাহতের ঘটনায় দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগ এনে শনিবারই তাসভির, ফারুকসহ তিনজনের বিরুদ্ধে বনানী থানায় মামলা করেন বনানী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই মিল্টন দত্ত।

আসামি তাসভির কুড়িগ্রাম জেলা বিএনপির সভাপতি ও বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য। পাশাপাশি তিনি কাশেম ড্রাইসেল কম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও নির্বাহী কর্মকর্তা। এফআর টাওয়ারের অবৈধ ও বর্ধিত অংশ নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে তাঁর বিরুদ্ধে। প্রকৌশলী ফারুক ওই জমির মালিক ছিলেন। তিনি একটি কম্পানির সঙ্গে ভবনটি নির্মাণ চুক্তি করে এর একাংশের মালিক হন।

গতকাল সংবাদ সম্মেলনে ডিবি পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার আব্দুল বাতেন আরো বলেন, ‘একটি ভবন নির্মাণে কী কী নীতিমালা রয়েছে, সেগুলো রাজউক নজরদারি করে। যিনি এই ইন্সপেকশন করেন তাঁর দায়দায়িত্ব সবচেয়ে বেশি। এ ছাড়া ফায়ার সেফটির বিষয়গুলোতে ফায়ার সার্ভিসের কাছ থেকে ছাড়পত্র নিতে হয়। এ ভবনে কী কী ব্যত্যয় ছিল সেসব শনাক্ত করা হবে। ’ আব্দুল বাতেন বলেন, ‘সাধারণত একটি ভবন ব্যবহার উপযোগী করে ডেভেলপার কম্পানি হস্তান্তর করে থাকে। এফআর টাওয়ারের ক্ষেত্রে ডেভেলপার কম্পানি অন্য মালিকদের রেজিস্ট্রেশন করে বুঝিয়ে দেয়নি। এ ক্ষেত্রে ভবনে ডেভেলপার কম্পানিরও মালিকানা রয়েছে। ’ অনুমোদন ও নজরদারিতে রাজউকের গাফিলতি থাকতে পারে, অথচ তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ না আনার বিষয়ে তিনি বলেন, ‘রাজউকের কার্যক্রমটি তার অথরিটি নিশ্চিত করবে। কেউ নিয়মবহির্ভূত কোনো কাজ করলে তাদের বিরুদ্ধে দাপ্তরিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Development by: visionbd24.com