বালাকোটে ভারতীয় হামলাস্থলের স্যাটেলাইট ছবি প্রকাশ

বুধবার, ০৬ মার্চ ২০১৯ | ৩:০০ অপরাহ্ণ | 596 বার

বালাকোটে ভারতীয় হামলাস্থলের স্যাটেলাইট ছবি প্রকাশ

পাকিস্তানের বালাকোটে ভারতের বিমান হামলা স্থলের স্যাটেলাইট ছবি প্রকাশ করেছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। ভারত তাদের অভিযানে জঙ্গি আস্তানা গুড়িয়ে দেয়ার দাবি করলেও, এতে দেখা যায়, জইশ-ই-মোহাম্মদের প্রশিক্ষণকেন্দ্র অক্ষত আছে। এর মধ্যেই জঙ্গি-বিরোধী অভিযান জোরদার করেছে পাকিস্তান সরকার। আটক করা হয়েছে পুলওয়ামা হামলার দায় স্বীকার করা জইশ-ই-মোহাম্মদের নেতা মাসুদ আজহারের ভাই ও ছেলেসহ অন্তত ৪৪ জনকে।
এদিকে কাশ্মীর সীমান্তে দু’দেশের সেনাদের মধ্যে গোলাগুলি অব্যাহত আছে বলে জানিয়েছে গণমাধ্যম।
পাকিস্তানের বালাকোটে ভারতীয় বিমান হামলায় হতাহত এবং ক্ষয়ক্ষতি নিয়ে চলমান বিতর্কের মধ্যেই বুধবার স্যাটেলাইট থেকে ধারণকৃত হামলাস্থলের ছবি প্রকাশ করেছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। সান ফ্রান্সিসকো-ভিত্তিক বেসরকারি স্যাটেলাইট অপারেটর- ‘প্ল্যানেট ল্যাব’ এর সরবরাহ করা ছবিতে দেখা যায়, বালাকোটের কাছে জঙ্গিগোষ্ঠী জইশ-ই-মোহাম্মদের প্রশিক্ষণ শিবিরগুলো পুরোপুরি অক্ষত রয়েছে। যদিও সেসময় প্রশিক্ষণকেন্দ্রসহ বিমান হামলায় জঙ্গিগোষ্ঠীটির আস্তানা গুঁড়িয়ে দেয়ার দাবি করে নয়াদিল্লি। ২০১৮ সালের এপ্রিলের স্যাটেলাইট ছবিগুলোর সঙ্গে বর্তমান ছবির তেমন কোনো পার্থক্য নেই। ছবির ব্যাপারে ভারত সরকারের সঙ্গে যোগাযোগ করেও কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি বলে জানায় রয়টার্স।
বালাকোটে বিমান হামলার পর ভারত-পাকিস্তান উত্তেজনার তাপ পৌঁছেছে দুই দেশের নৌ বাহিনীর মধ্যেও। মঙ্গলবার ভারতের একটি সাবমেরিন আটকে দেয়ার ভিডিও প্রকাশ করে পাকিস্তান। একই সঙ্গে ওই সাবমেরিন থেকে হামলার পরিকল্পনা নস্যাৎ করে দেয়ারও দাবি করে সে দেশের নৌবাহিনী।
তবে নিজেদের জলসীমায় ভারতীয় সাবমেরিনের প্রবেশ রুখে দেয়ার পাকিস্তানি দাবি নাকচ করে দিয়েছে ভারত। জাতীয় নিরাপত্তার স্বার্থে যা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার তা করবে উল্লেখ করে এক টুইট বার্তায় দেশটির নৌবাহিনী জানায়, গত কয়েকদিন ধরেই ভুল তথ্য দিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে পাকিস্তান। মিথ্যা ভিডিও প্রকাশের মাধ্যমে পাকিস্তান ‘প্রোপাগান্ডা’ ছড়াচ্ছে বলেও টুইট বার্তায় উল্লেখ করা হয়।
এমন পরিস্থিতির মধ্যেই নিষিদ্ধ ঘোষিত গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করেছে ইসলামাবাদ। পুলওয়ামায় হামলার দায় স্বীকার করা জইশ-ই-মোহাম্মদের নেতা মাসুদ আজহারের ভাই ও ছেলেসহ অন্তত ৪৪ জনকে আটক করা হয়। নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠনগুলোর অর্থ বাজেয়াপ্তের ঘোষণার পরই এমন পদক্ষেপ শুরু করলো পাকিস্তান।
আজম সুলেমান খান বলেন, ‘পুলওয়ামা হামলার পর ভারতের কাছ থেকে আমরা বারবার তথ্য চেয়েছিলাম। কিন্তু তারা আমাদের ডাকে কোনো সাড়া দেয়নি। জড়িতদের বিষয়ে ভারত তথ্য সরবরাহ করলে আমাদের পক্ষে ব্যবস্থা নেয়া সহজ হতো। নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠনের অনেক সদস্যকে আটক করছি আমরা। এরইমধ্যে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু হয়েছে। হামলার সঙ্গে কারা জড়িতদের বিষয়ে জানার চেষ্টা চলছে।
ভারতীয় গণমাধ্যমগুলো বলছে, প্যারিস-ভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংস্থা এফ.এ.টি.এফ-এর বেধে দেয়া সময়সীমার মধ্যে জঙ্গিগোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ না নিরে কালো তালিকাভুক্ত হবে পাকিস্তান। সেটি হলে আর্থিক চাপে পড়বে দেশটি। আর এ জন্যই নিষিদ্ধঘোষিত গোষ্ঠীগুলোর বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে শুরু করেছে ইমরান সরকার।
উত্তেজনা প্রশমনে উভয় দেশকে আবারো শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছে ওয়াশিংটন। সঙ্কট নিরসনে যুক্তরাষ্ট্র দুই দেশের সঙ্গেই আলোচনা অব্যাহত রেখেছে বলে জানান মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এই মুখপাত্র।
রবার্ট প্যালাডিনো বলেন, ভারত-পাকিস্তানের বৈরী সম্পর্ক কমাতে যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছে। দুই দেশের মধ্যে যে উত্তেজনা বিরাজ করছে তা সবার জন্যই উদ্বেগজনক। দ্বন্দ্ব নিরসনে আমরা উভয়পক্ষের সঙ্গেই সরাসরি আলোচনা করছি। আশা করি শিগগিরই স্বাভাবিক পরিস্থিতি ফিরে আসবে।
ভারত-পাকিস্তান তীব্র উত্তেজনা অব্যাহত থাকলেও স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে পাকিস্তান-নিয়ন্ত্রিত আজাদ কাশ্মীরের পরিস্থিতি। স্কুল-কলেজে ফিরতে শুরু করেছে শিক্ষার্থীরা। তবে ভিন্ন চিত্র ভারত-নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মীরে। কয়েকটি রাজনৈতিক দলকে নিষিদ্ধ ঘোষণা ও নিরাপত্তা বাহিনীর অভিযানের কারণে ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে সেখানকার বাসিন্দারা। এতে স্থবির হয়ে পড়েছে জনজীবন।

Development by: visionbd24.com