রোহিঙ্গাদের নিপীড়নের সুনির্দিষ্ট প্রমাণ নেই : মিয়ানমারের সেনাপ্রধান

রবিবার, ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | ৩:১৪ অপরাহ্ণ | 337 বার

রোহিঙ্গাদের নিপীড়নের সুনির্দিষ্ট প্রমাণ নেই : মিয়ানমারের সেনাপ্রধান

রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর নিপীড়ন সংঘটিত হয়ে থাকতে পারে—এভাবে প্রথমবারের মতো মিয়ানমারের সেনাপ্রধান মিন অং হ্লায়াং স্বীকারের পর বলেন, সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা নিপীড়নের সুনির্দিষ্ট প্রমাণ নেই। জাপানি সংবাদমাধ্যম আশাহি শিমবুনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, নিরাপত্তা বাহিনীর একাংশ এই নিপীড়ন চালিয়ে থাকতে পারে।

তবে ওই নিপীড়নে সেনা-সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ অতীতের ধারাবাহিকতায় আবারও নাকচ করেছেন তিনি। তিনি বলেন, সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে রোহিঙ্গা নিপীড়নের ‘সুনির্দিষ্ট প্রমাণ’ নেই। শুক্রবার আশাহি শিমবুনে প্রকাশিত সেই সাক্ষাৎকারের বরাতে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স ও ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপি এসব কথা জানিয়েছে।

গত ২০১৭ সালের আগস্টে রাখাইনে নিরাপত্তা বাহিনীর তল্লাশি চৌকিতে হামলার পর রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে পূর্বপরিকল্পিত ও কাঠামোবদ্ধ সহিংসতা জোরালো করে মিয়ানমার সেনাবাহিনী। খুন,ধর্ষণ ও অগ্নিসংযোগের মুখে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে প্রায় সাত লাখ রোহিঙ্গা। বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা ও সংবাদমাধ্যম রোহিঙ্গা নিপীড়নে সেনা সংশ্লিষ্টতার আলামত পেয়েছে। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে ইন দিন গ্রামের এক গণহত্যায় সেনা-সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ হাজির করা হয়।

সবশেষ জাতিসংঘের প্রতিবেদনেও রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমার সেনাবাহিনীর গণহত্যার আলামত মেলে। তা সত্ত্বেও শুরু থেকে এখন পর্যন্ত নিপীড়নে সেনা-সংশ্লিষ্টতা অস্বীকার করে আসছে সে দেশের সেনাবাহিনী। আশাহি শিমবুনকে দেয়া সাক্ষাৎকারে মিন অং হ্লায়াং বলেন, মিয়ানমারের সেনাবাহিনীই যে রোহিঙ্গা নিপীড়নের ঘটনায় জড়িত, সেরকম কোনও সুনির্দিষ্ট প্রমাণ নেই।

তিনি আরও বলেন, কোনও ধরনের প্রমাণ ছাড়া সমালোচনা করা হলে তা দেশের সম্মান ক্ষুণ্ণ করে। মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ ধারাবাহিকভাবে রোহিঙ্গা হত্যা, ধর্ষণ ও অন্য নিপীড়নের ঘটনায় সেনা সংশ্লিষ্টতা অস্বীকার করে আসলেও মিন অং হ্লায়াং স্বীকার করেছেন, নিরাপত্তা বাহিনীর কিছু সংখ্যক সদস্যের এক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টতা থাকতে পারে।

Development by: visionbd24.com